Public Private Partnership – PPP : Focus Writing

Public Private Partnership-PPP কে আমার কাছে focus writing হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ মনে হচ্ছে। তাই সনাতন দা’র আড্ডায় Public Private Partnership-PPP নিয়ে focus writing টা দিয়েই দিলাম।

সনাতন দা’র আড্ডার আপডেট পেতে Notification Subscribe করে নিতে পারেন। তাহলে Public Private Partnership-PPP এর মত আড্ডার নতুন পোস্ট আপনাকেই খুজে নেবে। নিচের ফেসবুক বাটনে ক্লিক করে Public Private Partnership-PPP আপনার টাইমলাইনে শেয়ার করে রাখুন। নিজের প্রয়োজনেই বেশি বেশি শেয়ার করে দাদাকে উৎসাহ দিন, আড্ডাকে প্রানবন্ত করুন- সর্বোচ্চ ভালটা পাবেন। 

Public Private Partnership-PPP

বর্তমান সময়ে কেবল পৃথকভাবে নেওয়া সরকারি ও বেসরকারি অর্থায়নে উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়নের মাধ্যমে অনেক ক্ষেত্রে কাঙ্ক্ষিত অর্থনৈতিক উন্নতি অর্জন সম্ভবপর নয়। তাই, বিশ্বজুড়ে Public Private Partnership (PPP) প্রকল্প গ্রহণ যুক্তিযুক্ত হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশও উন্নয়নের এই নতুন মডেল নিয়ে কাজ করছে।

Public Private Partnership (PPP) এর ভিত্তিতে প্রকল্প গ্রহণ বিশেষত ভৌত অবকাঠামােগত উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ কৌশল। দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থা থেকে উন্নয়ন ধারাকে পরবর্তী উচ্চতর স্তরে উন্নীত করার প্রধান উপাদান হচ্ছে আধুনিক, গতিশীল এবং নিরন্তর সেবা প্রদানে সক্ষম অবকাঠামাে গড়ে তােলা। নির্ভরযােগ্য ও টেকসই অবকাঠামাে ব্যবস্থা নিশ্চিত করে দেশে বর্ধিত বিনিয়ােগের পরিবেশ সৃষ্টি করা এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে সমুন্নত রাখাই Public Private Partnership (PPP) তত্ত্বের মূল লক্ষ্য।

ব্যক্তিখাতের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে সীমিত সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিতকরণে উন্নয়নের জন্য নতুন Public Private Partnership (PPP) মডেল কাজ করছে। তাই বেসরকারি বিনিয়ােগকারীদের আস্থা অর্জন ও প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামাের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য Public Private Partnership Law (PPP), ২০১৫’ প্রণয়ন করা হয়েছে। অবকাঠামাে খাতে বেসরকারি বিনিয়ােগ উৎসাহিত করার জন্য এ খাতে আর্থিক প্রণােদনা দেওয়া হচ্ছে। প্রকল্প প্রণয়ন, ব্যবস্থাপনা ও তদারকিতে বাস্তবায়নকারী সংস্থার সক্ষমতা বৃদ্ধির কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। এসব ব্যবস্থার ফলে দেশের অবকাঠামাে নির্মাণে দৃশ্যমান অগগ্রতি সাধিত হবে বলে আশা করা যায়। বেসরকারি খাতকে উৎসাহ প্রদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফাইন্যান্স ফান্ড লিমিটেড (BIFFL) নামক ব্যাংক-বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এর অনুকূলে ৪০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বরাদ্দ রাখা হয়েছে। Public Private Partnership (PPP) এর মাধ্যমে বাস্তবায়নের জন্য ৯টি খাতে বর্তমানে ৪৭টি প্রকল্প নীতিগতভাবে অনুমােদন করা হয়েছে। এ সকল প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে আনুমানিক ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়ােগ করা হবে। ইতােমধ্যে ১০টি প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বেসরকারি অংশীদারের সংগে চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়েছে যার প্রকল্প মূল্য ২.৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এছাড়া, দরপত্র প্রক্রিয়াধীন ১০ টি প্রকল্প এবং সম্ভাব্যতা যাচাই পর্যায়ে থাকা ১৩টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে মােট বিনিয়ােগের পরিমাণ হবে ৬.৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে ২টি এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে এ পর্যন্ত ২টি প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বেসরকারি অংশীদারের সংগে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

ইতােমধ্যে অনুমােদিত Public Private Partnership (PPP) খাত ও খাত প্রতি সম্ভাব্য মোট ব্যয় নিম্নে উপস্থাপন করা হলােঃ
ক্রমখাতসম্ভাব্য ব্যয়(মিলিয়ন মার্কিন ডলার)
01পরিবহন7720
02অর্থনৈতিক জোন1400
03পর্যটন2835
04স্বাস্থ্য289
05আবাসন1440
06শক্তি35
07শিক্ষা100
08সামাজিক অবকাঠামো10
09টেক্সটাইল90
সর্বমোট13919

Public Private Partnership (PPP) প্রকল্প বাস্তবায়নকে ত্বরান্বিত করতে Public Private Partnership (PPP) আইন, প্রকিউরমেন্ট গাইডলাইন এবং Public Private Partnership (PPP) প্রকল্প বাস্তবায়নের নীতিমালা-২০১৭ এরই মধ্যে প্রণয়ন করা হয়েছে।

সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার হিসাব মতে, সরকারের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১-এর অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছতে দেশের ভৌত অবকাঠামো ও সেবা সেক্টরে প্রতি বছর বিনিয়োগ প্রয়োজন মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৬ শতাংশ। অর্থাৎ প্রতি বছর কমপক্ষে ১৫ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করা প্রয়োজন। যেখানে Public Private Partnership (PPP) এর মাধ্যমে পূরণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ দশমিক ৮ শতাংশ। অর্থাৎ প্রতি বছর Public Private Partnership (PPP) প্রকল্পে বিনিয়োগ হতে হবে ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার, যা অবকাঠামো ও সেবা সেক্টরের মোট বিনিয়োগের ৩০ শতাংশ। এজন্য প্রতিটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে প্রকল্পে মোট বিনিয়োগের ৩০ শতাংশ Public Private Partnership (PPP) এর মাধ্যমে বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করার কথা বলা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন যে, Public Private Partnership PPP এর মাধ্যমে গৃহীত প্রকল্পসমূহ যদি জনগণ, বেসরকারি বিনিয়োগকারী এবং সরকারি প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থাসমূহের নিকট রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হয় তবেই Public Private Partnership PPP পদ্ধতিতে প্রকল্প বাস্তবায়নে সকলের অন্তরে বিশ্বাস ও আস্থার সৃষ্টি হবে।

———- XXX———–

আরও কিছু ফোকাস রাইটিং:

১। Dhaka Metro Rail Project : Focus Writing for Bank

২। E-banking: Focus Writing for BB AD 27.07.2018

৩। জীবন ও স্বাস্থ্য-সুরক্ষায় নিরাপদ খাদ্য: Focus Writing

৪। Social Safety Net Program: focus writing

৫। Green Banking by Banks: Focus Writing

৬। Financial Inclusion in Bangladesh: Focus Writing

——XXX———–
Public Private Partnership (PPP) ছকে ব্যবহৃত খাতগুলোর বিস্তারিত নিচে দেয়া হল। পরীক্ষায় এটা লেখার প্রয়োজন নাই।

Public Private Partnership (PPP)  প্রকল্পের নাম

ক. পরিবহণ খাত

১। ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে (চুক্তি স্বাক্ষরিত)

২। মােংলা বন্দরে ২টি জেটি নির্মাণ

৩। খান জাহান আলী বিমানবন্দর, বাগেরহাট

৪। ঢাকা বাইপাস চার লেনে উন্নীতকরণ

৫। ঢাকা- চরাগ্রাম এ্যাকসেস কনেট্রাল হাইওয়ে

৬। লালদিয়া বাল্ক টার্মিনাল নির্মাণ

৭। খানপুরে অভ্যন্তরীণ কনেটনার টার্মিনাল নির্মাণ ও পরিচালনা

৮। ধীরাশ্রম রেলস্টেশনে নতুন আইসিড়ি নির্মাণ

৯। পাটুরিয়া-গােয়ন্দতে ২য় পদ্মাসেতু নির্মাণ

১০। ৩য় সমুদ্র বন্দর

১১। হাতিরঝিল- রামপুরা সেতু

খ. অর্থনৈতিক জোন

১। কালিয়াকৈরে হাইটেক পার্ক নির্মাণ

২। মােংলায় অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা

৩। মহাখালিতে আইটি ভিলেজ নির্মাণ

৪। মিরেরসরাইয়ে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা

৫। শ্রীহট্ট (শেরপুর) অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা

৬। আনােয়ারা, চট্টগ্রামে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা

৭। সিলেটে হাইটেক পার্ক নির্মাণ

৮। সিরাজগঞ্জে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা

৯। জামালপুরে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা

গ. পর্যটন খাত

১। কক্সবাজারে পর্যটন ও বিনােদন কেন্দ্র নির্মাণ

২। জাকির হােসেন রােড, চট্টগ্রামে পাঁচতারা হােটেল নির্মাণ

৩। কক্সবাজারে আন্তর্জাতিক মানের পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণ (মােটেল উপল)

৪। সাবরাং এক্সক্লসিভ ট্যুরিস্ট জোন প্রতিষ্ঠা

৫। সিলেটে পাঁচ তারকা হােটেল নির্মাণ ( বিদ্যমান পর্যটন হােটেলে)

৬। পাঁচ তারকা হােটেল ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, মুজগুন্নি, খুলনা

৭। তিন তারকা হােটেল, পশুর, মােংলা, বাগেরহাট

ঘ. স্বাস্থ্য খাত

১। প্রান মােডকেল কলেজ হাসপাতালে কিডনী ডায়ালিসিস সেন্টার নির্মাণ

২। ঢাকার কিডনী হাসপাতালে কিডনী ডায়ালিসিস সেন্টার স্থাপন

৩। বয়স্ক নাগরিকদের জন্য স্বাস্থ্য ও হসপিটালিটি কমপ্লেক্স নির্মাণঃ অবসর

৪। সৈয়দপুরে মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও রেলওয়ে হাসপাতাল আধুনিকীকরণ

৫। পাকশীতে মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও রেলওয়ে হাসপাতাল আধুনিকীকরণ

৬। খুলনায় মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও ২৫০ শয্যা হাসপাতাল নির্মাণ

৭। চট্টগ্রামের সিআরবিতে মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও রেলওয়ে হাসপাতাল আধুনিকায়ন

ঙ. আবাসন খাত

১। মিরপুরে স্যাটেলাইট টাউন নির্মাণ

২। চট্টগ্রামে রেলওয়ের জমিতে হােটেল-কাম-গেস্ট হাউস ও শপিং মল নির্মাণ

৩। খুলনায় রেলওয়ের জমিতে হােটেল-কাম-গেস্ট হাউস ও শপিং মল নির্মাণ

৪। চট্টগ্রামের নাসিরাবাদে বহুতল বাণিজ্যিক ভবন ও আবাসিক এপার্টমেন্ট নির্মাণ

৫। নিম্ন ও মধ্যবিত্ত মানুষের জন্য ঢাকায় বহুতল আবাসিক ভবন নির্মাণ ( ঝিলমিল প্রকল্প)

৬। পূর্বাচল পানি সরবারাহ, ড্রেনেজ ও পয়নিস্কাশন প্রকল্প

চ. শক্তি খাত

১। চট্টগ্রামের কুমিরাতে এলপিজি বটলিং প্লান্ট স্থাপন

ছ. শিক্ষা খাত

১। কমলাপুরে মেডিকেল কলেজ ও নার্সিং ইন্সটিটিউট স্থাপন ও রেলওয়ে হাসপাতাল

জ. সামাজিক অবকাঠামাে খাত

১। টঙ্গীতে শ্রমিক কল্যাণ কেন্দ্র হাসপাতাল উন্নয়ন ও বাণিজ্যিক ভবননির্মাণ (পিপিপি)

২। চাষাড়া, নারায়নগঞ্জে শ্রমিক কল্যাণ কেন্দ্র হাসপাতাল উন্নয়ন ও বাণিজ্যিক ভবননির্মাণ

ঝ. টেক্সটাইল খাত

১। টেক্সটাইলমিল, ডেমরা

২। টেক্সটাইল মিল, টংগী

উৎসঃ সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্ব কর্তৃপক্ষ

আপনার টাইমলাইনে শেয়ার করতে ফেসবুক আইকনে ক্লিক করুনঃ
Updated: May 14, 2019 — 3:13 pm

2 Comments

Add a Comment
  1. apps কিংবা সাইট উভয়েই মারাত্নক বাজে দেখতে। ডেভলপারকে বলুন আরো সুন্দর ও গোছানো করতে৷ কেমন হবে এমন কোন মডেল ফলো করতে চাইলে amaderelectronics এর সাইট ঘুরে আসুন৷

    HTML এ aref এর কাজ খুব সোজা। হোম পেজ হবে বিভিন্ন তথ্যে ভরপুর এবং অবশ্যই গোছানো। এর ভেতরে লিংক দিয়ে সাজান সাইট দেখতে এবং সুখপাঠ্য হবে। এটাকে সমালোচনা মনে না করে মন্তব্য বলে নিন৷

  2. ফোকাস রাইটিং এর যেসব লিংক দেওয়া আছে, এগুলোতে প্রবেশ করা যাচ্ছে না কেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *